নিউজ ডেস্ক
আজ : ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, রবিবার প্রকাশ করা : জানুয়ারি ২৫, ২০২১


  • ধর্ষিতা তরুণী ২য় বারেও ৯৯৯ এ কল করে প্রাণ বাঁচালেন

    জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ কল করে চিকিৎসা সহায়তা পেলেন ধর্ষণের শিকার গর্ভবতী এক তরুণী। ভুক্তভোগী ওই তরুণীকে পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে উদ্ধার করে অ্যাম্বুলেন্সে বরিশাল সদরের শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এনে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

    সোমবার বিকালে জাতীয় জরুরি সেবা সেলের মিডিয়া কর্মকর্তা আনোয়ার সাত্তার জানিয়েছেন এই তথ্য।

    আনোয়ার সাত্তার জানান, রবিবার বিকালে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন এক অসুস্থ তরুণী ফোন করে জানান, তিনি গর্ভবতী এবং গুরুতর অসুস্থ। তার প্রচুর রক্তপাত হচ্ছে। তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। কিন্তু তার সাথে বরিশাল নিয়ে যাওয়ার মতো কেউ নেই। তার বাবা মা বেঁচে নেই।

    ৯৯৯ এ ওই তরুণী আরও জানান, গত বছরের অক্টোবর মাসে তিনি ধর্ষণের শিকার হন। সে সময়ও জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ কল করে উদ্ধার পেয়েছিলেন। পরে ভান্ডারিয়া থানায় মামলা করলে পুলিশ ধর্ষণকারীকে গ্রেপ্তার করে। ধর্ষণকারী সম্প্রতি জেল থেকে বের হয়ে তাকে হুমকি দিচ্ছে। তাই ভয়ে তার আত্মীয়-স্বজন কেউ তাকে সাহায্য করতে রাজি হচ্ছে না।

    তরুণী কান্নায় ভেঙে পড়ে ৯৯৯ এর কাছে তার জীবন বাঁচাতে বরিশাল মেডিকেলে পাঠানোর ব্যবস্থা করার অনুরোধ জানান।

    পরে জাতীয় জরুরি সেবা সেলে থেকে তাৎক্ষণিকভাবে ভান্ডারিয়া উপজেলার সরকারি ও বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্স চালকদের সঙ্গে যোগাযোগ করে। কিন্তু তরুণীর আত্মীয়-স্বজন না থাকায় অ্যাম্বুলেন্স চালকরা তাকে বরিশাল নিয়ে যেতে অনীহা প্রকাশ করে। পরে তার এক আত্মীয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেতে রাজি করায় এবং একই সঙ্গে এক বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্স মালিককে বরিশাল নিয়ে যেতে রাজি করান জাতীয় জরুরি সেবা সেলের সদস্যরা। অবশেষে রবিবার সন্ধ্যায় তরুণীকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

    সোমবার দুপুরে ৯৯৯ থেকে যোগাযোগ করে তরুণীর স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নেয়া হয়। তখন তরুণী জানান, তার শরীর এখনো অনেক খারাপ, তার গর্ভের সন্তান নষ্ট হয়ে গেছে এবং তাকে দুই ব্যাগ রক্ত দিতে হয়েছে। তবে ডাক্তাররা জানিয়েছেন তিনি বর্তমানে আশংকামুক্ত।